Wednesday, April 29, 2020



সমাজকে দিশা দেখাতে, মাকাউট

শুরু করছে ‘Entrepreneurship Portal'

মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈকত মৈত্র  মহাশয় 

পশ্চিমবঙ্গের মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের একাংশ 


'শিল্পোদ্যোগী'

ইংরেজিতে 'Entrepreneurship.'  

শব্দটির সঙ্গে কম বেশি আমরা সকলেই পরিচিত। কিন্তু এই লকডাউন পরিস্থিতিতে এই শব্দটির গুরুত্ব যেন বেড়ে গিয়েছে অনেকটা। আমরা উপলব্ধি করতে পারছি অনেক বিপদের সময় আমাদের বাঁচিয়ে দিতে পারে যে কোনো ধরনের শিল্পোদ্যোগ। অর্থাৎ ছোট ছোট সব ধরনের শিল্পই আমাদের অর্থনৈতিক ভাবে বাঁচিয়ে দিতে পারে। শুধু তাই নয়, মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (মাকাউট), ডব্লিউবি -র উপাচার্য মাননীয় অধ্যাপক ড. সৈকত মৈত্র বলেন, একটি শিল্পোদ্যোগ এক সঙ্গে অনেকগুলি পরিবারকে নিজের পায়ে দাঁড়াতে সাহায্য করে। কিন্তু এর জন্য চাই সঠিক পরামর্শ র একটু সাহায্যের হাত। মাকাউট যেহেতু শুধু পরামর্শ দিয়েই ক্ষান্ত থাকে না, তাই এবারে সকলের জন্য বিশেষ 'শিল্পোদ্যোগী পোর্টাল ' বা 'Entrepreneurship Portal' তৈরী করতে শুরু করেছে মাকাউট।
গত ২৩ এপ্রিল এক অনলাইন সভায় এ কথা জানান মাননীয় উপাচার্য মহাশয়। কয়েকজন বিশেষজ্ঞকে নিয়ে তৈরী হয়েছে একটি কমিটিও। 

সেই কমিটি এই পোর্টাল তৈরিতে ব্যস্ত রয়েছেন।  





কি থাকবে ওই পোর্টালে?
ওই কমিটির এক সদস্য জানান, এই পোর্টাল আদতে একটি পাঠাগারের মত।  অর্থাৎ যেখানে এক লহমায় শিল্পোদ্যোগী সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য পেয়ে যাবেন উদ্যোক্তারা।  তারা জেনে নিতে পারবেন সমস্ত শিল্পদ্যগের খুঁটিনাটি। সেখানে থাকবে বিভিন্ন শিল্পের ক্ষেত্রে সফল হয় মানুষদের গল্প। যা থেকে শুধু অনুপ্রানিত হওয়া নয়, আগামী দিনের রাস্তা চলার জন্য উপযুক্ত দিক নির্দেশ পেতে পারেন তারা। মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈকত মৈত্র জানান, যে খুব  শিগগিরই এই পোর্টাল তৈরি হবে, যেখানে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক গৃহীত উদ্যোগী কার্যক্রম প্রদর্শন করা হবে। তার পাশাপাশি, উদ্যোক্তাদের সাফল্যের গল্প, স্টার্ট-আপ ক্রিয়াকলাপগুলির লিঙ্ক, আগত ওয়েবিনার, ব্লগ পোস্ট করা ইত্যাদি এই পোর্টালটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে লিঙ্ক করা হবে। তিনি আরও জানান, মাইক্রো উদ্যোক্তারা তাদের বাড়ি থেকে কাজ করতে এবং ব্যবসা পরিচালনা করতে সক্ষম হবেন। এই মডেলটি অনুসরণ করে জাপান চূড়ান্তভাবে সফল হয়েছে। 

পশ্চিমবঙ্গের মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসের একাংশ 

পশ্চিমবঙ্গের মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসের একাংশ 

এ জাতীয় উদ্যোগের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বারা হরিণঘাটা অঞ্চল ও অন্যান্য জায়গাগুলিতে এবং আশেপাশে সাধারণ সুবিধামত কেন্দ্রগুলি তৈরি করা হবে।

 অদূর ভবিষ্যতে অনেক পণ্য এবং পরিষেবাদির বাজার নতুন করে তৈরী হবে।
স্যানিটাইজার উৎপাদন
বাড়ির তৈরি সাবান
প্রাকৃতিক স্বাস্থ্যসেবা পণ্য
পরিষ্কারের এজেন্টস
বাড়ির তৈরি কুকিজ
খাবারের জিনিসপত্র ইত্যাদি
 আইটি ভিত্তিক পরিষেবা (ক্লাউডের মাধ্যমে)
অ্যাপ ভিত্তিক পরিষেবাগুলিরও চাহিদা থাকবে।
উদীয়মান উদ্যোক্তাদের সহায়তা প্রদান এবং তাদের পণ্য বিপণনে সহায়তা করার জন্য মাকাউট প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।



মাকাউট গোটা সমাজকে এবং শিক্ষার্থীদের এগিয়ে নিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর।

Sunday, April 26, 2020


গোটা রাজ্যের স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা

যোগ দিয়েছে মাকাউটের কর্মকাণ্ডে

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় , পশ্চিমবঙ্গ 

মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈকত মৈত্র মহাশয় 

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় , পশ্চিমবঙ্গ 


ঘরে বসে থেকেও নিজের সৃজনশীল সত্ত্বাকে বাইরে বের করে আনা যায়। তার জন্য দরকার অনুঘটকের। এক্ষেত্রে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের জন্য অনুঘটকের কাজ করছে মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি  বিশ্ববিদ্যালয় (মাকাউট) মাননীয় উপাচার্য আধ্যাপক () সৈকত মৈত্র বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের জন্য উপযুক্ত সহ-পাঠ্যক্রমিক ক্রিয়াকলাপের একটি তালিকা চিহ্নিত করেছেন, তারা ঘরে বসে থাকবে। সেখানে বসেই নিজের ভিতরে থাকা সৃজনশীলতাকে বাইরে বের করে আনবে তারা।
ইতিমধ্যে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছাত্রছাত্রীরা যোগ দিয়েছে এই কর্মকাণ্ডে। তোমরাও আর থেমে থেকো না।  

মাকাউট আশা করেন যে এই জাতীয় ক্রিয়াকলাপ শিক্ষার্থীদের বর্তমান সঙ্কট পরিস্থিতি সত্ত্বেও হতাশা কাটিয়ে উঠতে এবং পরিবারের সাথে আনন্দিত হতে সহায়তা করবে। মাকাউট তাদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য জাতীয় ক্রিয়াকলাপগুলির জন্য তাদের পুরস্কার দেবে বা শংসাপত্র দেবে।



স্কুল শিক্ষার্থীদের জন্য ক্রিয়াকলাপগুলির তালিকা

১. থিম ফটোগ্রাফি (নির্দিষ্ট থিম নির্বাচন করে বাড়ির অভ্যন্তরে তোলা ফটোগ্রাফ) এবং অনলাইনে প্রকাশনা 

. মোবাইল ফোন এবং অনলাইনে প্রকাশনা ব্যবহার করে ভিডিও ফিল্ম ঘরে ঘরে তৈরি করা

. কবিতা, গল্প, ব্লগ এবং অনলাইন প্রকাশনা

. গল্পের বই, উপন্যাস, চলচ্চিত্র, ডকুমেন্টারি, ইউটিউব ভিডিওগুলির পর্যালোচনা

৫. রান্না রেসিপি এবং / অথবা রান্না (ভিডিও ডকুমেন্টেশন সহ)  

৬.  গান / সঙ্গীত রেকর্ডিং (ফটো / ভিডিও ডকুমেন্টেশন সহ) এবং অনলাইন প্রকাশনা

৭. বাড়ির মধ্যে বাগান করা (ভিডিও ডকুমেন্টেশন সহ)

. পিতামাতা এবং পরিবারের সদস্যদের পরিবারের কাজ / বিষয়গুলিতে সহায়তা করা। উদাহরণ; পরিষ্কার করা, আসবাবের পুনর্গঠন, ধোয়া, সাজসজ্জা ইত্যাদি

. সামাজিক সচেতনতা ছড়িয়ে দিতে এবং বার্তা দেওয়ার জন্য সামাজিক নেটওয়ার্কিং দল তৈরি করা  

১০. বাড়িতে পশুপাখি, এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের যত্ন নেওয়া 

১১. ভাষা, কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ইত্যাদির মতো কোনও দক্ষতা শেখা  

১২. অনুশীলন যোগ, ধ্যান, অনুশীলন

১৩. সেলাই, 

১৪. কোভিড ১৯ সচেতনতার পোস্টার, ভিডিও এবং রচনা প্রবন্ধ (বাংলা এবং ইংরেজি) 



নিম্নলিখিত বিভাগগুলি সেখানে থাকবে:
বিভাগ - চতুর্থ শ্রেণিতে নার্সারি
বিভাগ ২ - পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণি
বিভাগ ৩ - নবম এবং দশম শ্রেণি
বিভাগ ৪ - একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণি


বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদের ব্যতিক্রমী ক্রিয়াকলাপ প্রদান প্রত্যয়ন করতে বিদ্যালয়গুলির মধ্যে প্রতিযোগিতা পরিচালনা করতে পারে। স্কুল এবং স্বতন্ত্র শিক্ষার্থীরা নিম্নলিখিত ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমে তাদের ক্রিয়াকলাপ প্রেরণ করতে পারে:
schoolconnectmakaut19@gmail.com

দয়া করে এই ফর্ম্যাটটি অনুসরণ করুন:

ক্রিয়াকলাপের বিবরণ - ডকুমেন্ট / ফটো / ভিডিওগ্রাফি / ইত্যাদি
শিক্ষার্থীর নাম-
ফোন নম্বর-
মেল আইডি-
ঠিকানা-
শ্রেণি-
বিভাগ-
স্কুলের নাম-

Tuesday, April 21, 2020


বাড়ি বাড়ি ঘুরে খাবার 

পৌঁছতে উদ্যোগী হল 

মাকাউট







বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কমিউনিটি কিচেন তৈরী করে হরিণঘাটা এলাকার বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে গরিব মানুষদের ঘরে ঘরে খাবার  পৌঁছে দিতে উদ্যোগী হল পশ্চিমবঙ্গের মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। মাকাউটের উপাচার্য মাননীয় অধ্যাপক সৈকত মৈত্র মহাশয় জানিয়েছেন , পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত এই কাজ চলবে। 






মাকাউটের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসে শুরু হয়েছে কমিউনিটি কিচেন। সরকারের আপৎকালীন ত্রাণ তহবিলে ১০ লক্ষ টাকা দেওয়া ছাড়াও নিজেদের তৈরী করা স্যানিটাইজার বিনামূল্যে সাধারণ মানুষদের দেওয়া হয়েছে। এবার করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে  বাড়ি বাড়ি গিয়ে গরিব মানুষদের মুখে খাবার তুলে দিতে উদ্যোগী হল মাকাউট।













উপাচার্য অধ্যাপক সৈকত মৈত্র বলেন, "লকডাউন থাকার কারণে বাড়ি থেকে না বের হতে পেরে গরীব মানুষেরা বেকায়দায় পরে গিয়েছেন। কিন্তু করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করতে গেলে এছাড়া আর উপায়ও নেই। তাই ঠিক হয়েছে মাকাউটের মেইন ক্যাম্পাস হরিণঘাটা এলাকার প্রায় দুশোটি পরিবারকে দুপুরের এবং রাতের খাবার পৌঁছে দেওয়া হবে।" এই কাজের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মাকাউটের সহ নিবন্ধক অনুপ কুমার মুখোপাধ্যায়।

















অনুপবাবু জানান, এই কমিউনিটি কিচেনে ক্যাম্পাসে খাবার তৈরী হচ্ছে। শুক্রবার থেকে সেই খাবার পৌঁছে দেওয়া হবে ওই সমস্ত মানুষদের বাড়ি। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত প্রতিদিন এই কাজ চলবে।






করোনা মোকাবিলায় স্যানিটাইজার এর পরে বার মাস্ক তৈরি শুরু করল মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। মাকাউটের উপাচার্য সৈকত মৈত্র মঙ্গলবার জানান, দিন থেকে হরিণঘাটা ক্যম্পাসে এই ত্রিস্তরীয় মাস্ক তৈরীর কাজ শুরু হয়েছে। নদীয়ার হরিণঘাটা এলাকার সাধারণ মানুষদের  বিনামূল্যে এই মাস্ক দেওয়া হবে। সহ নিবন্ধক অনুপ কুমার মুখার্জীর নেতৃত্বে যে দল এলাকায় রোজ খাবার পৌঁছতে যায় সেই দলের কর্মীরাই এই মাস্ক বিনামূল্যে বিতরণ করবেন। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি থানা এবং হাসপাতালেও এই মাস্ক দেওয়া হচ্ছে। অনুপবাবু জানান , প্রতিদিন ৪০০ টি করে মাস্ক দেওয়া হচ্ছে। এই মাস্ক পুনর্ব্যবহার যোগ্য।