রবিবার, ৩ জানুয়ারী, ২০২১

গণিতের প্রতি ভয় কাটিয়ে কী ভাবে আগ্রহ বৃদ্ধি করতে হয় তার দিশা পেতে অনলাইনে যোগ দিন ম্যাকাউটের বন্ধন অনুষ্ঠানে..

গণিতের প্রতি ভয় ? সে কারণে আগ্রহ কমছে ?

চিন্তা নেই…..

গণিতের প্রতি ভয় কাটিয়ে কী ভাবে আগ্রহ বৃদ্ধি করতে হয় তার দিশা পেতে অনলাইনে যোগ দিন ম্যাকাউটের বন্ধন অনুষ্ঠানে..




সেখানে থাকবেন ম্যাকাউটের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক সৈকত মৈত্র মহাশয়, রেজিস্ট্রার .পার্থপ্রতিম লাহিড়ী মহাশয়, উপদেষ্টা . শুভব্রত রায়চৌধুরী মহাশয়। এছাড়া গণিতের বিষয়ে সরাসরি প্রশ্ন করতে পারেন বিশেষজ্ঞদের , সেখানে উপস্থিত থাকবেন পশ্চিমবঙ্গ মধ্যশিক্ষা পর্ষদের ডেপুটি সেক্রেটারি  . পার্থ কর্মকার, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্কুলশিক্ষা দফতরের এসসিইআরটি- গণিতের ফেলো সুব্রত কুমার বিশ্বাস এবং ম্যাকাউটের গণিতের অধ্যাপক (.) পি.এন. দত্ত।

 *MAKAUT, WB* , WEBINAR TEAM is inviting you to Join scheduled Webinar. 


Topic: *"MAKAUT er Bandhan"*.

*Date*: 10.01.2021, *Time*: 10:00 AM (IST)


To overcome the fear of mathematics and experience a lucid learning process, students, guardians and teachers of schools and colleges can interact with experts directly. Certificates will be provided to all.


*Organized by -*

*MAULANA ABUL KALAM AZAD UNIVERSITY OF TECHNOLOGY, WEST BENGAL*

------------

*Registration Open now*.

Register in advance for this webinar:-http://bit.ly/37LIEkJ 


After registering, you will receive a confirmation email containing information about joining the webinar.


(*e-certificate* will be issued to all participants who attend the webinar and submit the feedback).



মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক (.) সৈকত মৈত্র মহাশয়

স্কুল বা কলেজের পড়ুয়া, শিক্ষক এবং অভিভাবকেরাও সরাসরি কথা বলতে পারেন। আর জন্য যে লিঙ্ক পাঠানো হয়েছে সেখানে শীঘ্রই রেজিস্ট্রেশন করুন।  তার পরে আপনারা একটা কনফার্মেশন -মেল পাবেন। অনুষ্ঠানের দিন ওই -মেলে পাঠানো লিঙ্কে ক্লিক করেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারবেন। for details please visit www.makautwb.ac.in

যে কোনও অসুবিধা হলে মেল্ করুন schoolconnectmakaut19@gmail.com

মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২০

পঞ্চম স্থানে পৌঁছে গেল মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়



 

সোশ্যাল মিডিয়া এবং অনলাইনে সক্রিয় থাকায় পঞ্চম স্থানে 

পৌঁছে গেল মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়



মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়


বেসরকারি আন্তর্জাতিক সংস্থার বিচারে সোশ্যাল মিডিয়া এবং অনলাইনের কার্যকারিতায় পঞ্চম স্থানে  পৌঁছে গেল মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। সম্প্রতি uni Rank নামের যে সংস্থা তালিকা প্রকাশ করেছে সেখানে এই রাজ্যের মধ্যে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে ম্যাকাউট ৫ নম্বর স্থানে রয়েছে।  বিভিন্ন সংবাদপত্রে সেই খবরের উল্লেখ হয়েছে।
ফেসবুক, টুইটার , ইউটিউব এবং ব্লগে ম্যাকাউটের সদর্থক ভূমিকা এই রিপোর্টে উঠে এসেছে।    

মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক সৈকত মৈত্র জানান, "এই অতিমারীর সময়েও আমরা সব সময় চেষ্টা করেছি সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং অনলাইনে পঠনপাঠনের সমস্ত কিছু প্রক্রিয়া স্বভাবিক ভাবে চালু রাখতে। সকলের সহযোগিতায় সেটা আমরা করতে পেরেছি। পড়ুয়াদের সুবিধা হয়েছে. এটাই আনন্দের।"

বর্তমান পত্রিকা 

 

শুক্রবার, ২০ নভেম্বর, ২০২০

রাজ্য স্তরের অনলাইন প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা, ২০২০

রাজ্য স্তরের অনলাইন প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা, ২০২০


মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,পশ্চিমবঙ্গ (ম্যাকাউট)- এর স্কুল কানেক্ট প্রোগ্রামের একটি কর্মসূচি

আরও আবেদন আসতে থাকায়, চাহিদা ক্রমশ বাড়ছে তাই সময়সীমা বৃদ্ধি করা হল।

প্রবন্ধ পাঠানোর শেষ তারিখ: ২৫ ডিসেম্বর, ২০২০. রাত ১২টা পর্যন্ত প্রবন্ধ পাঠানো যাবে। 


সদ্য শেষ হয়েছে স্কুল পড়ুয়াদের রাজ্য স্তরের অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা। মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক সৈকত মৈত্র মহাশয়ের পরামর্শে এবার তাদের জন্য অনলাইনে রাজ্য স্তরের প্রবন্ধ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হল। মাননীয় উপাচার্য মহাশয় জানিয়েছেন, স্কুল পড়ুয়াদের মধ্যে যে নিজস্ব সত্ত্বা রয়েছে এই সমস্ত কাজের মাধ্যমে সেগুলি প্রকাশের সুযোগ করতে হবে। তাই শুধু কুইজ বা প্রবন্ধ নয় বিভিন্ন প্রতিযোগিতা আয়োজনের পরিকল্পনা রয়েছে।  সময় মত সমস্মত কিছু জানানো হবে।  বিস্তারিত নিয়মাবলী নিচে দেওয়া হল।  

ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়ারা  এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবে .  রাজ্যের বিভিন্ন স্কুল থেকে প্রচুর  সংখ্যক পড়ুয়ারা এতে যোগ দিচ্ছেন। প্রত্যেক অংশগ্রহণকারীকে ম্যাকাউটের তরফ থেকে শংসাপত্র দেওয়া হবে।  প্রথম, দ্বিতীয় তৃতীয় স্থানাধিকারীকে দেওয়া হবে বিশেষ অভ্যর্থনা।  তাদের ছবি প্রকাশ করা হবে ম্যাকাউটের ফেসবুক পেজে এবং ব্লগে। কোভিড পরিস্থিতির পরিবর্তনের পরে ম্যাকাউটের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসে বিশেষভাবে অভ্যর্থনা জানানো হবে তাদের।  

 

মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক সৈকত মৈত্র মহাশয়


নিয়মাবলী :

১। বাড়িতে বসেই অনলাইনে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবে স্কুল পড়ুয়ারা. অনধিক ৫০০ শব্দের মধ্যে প্রবন্ধ লিখে পাঠিয়ে দাও……..

 ২। প্রবন্ধ বাংলায় লিখলে কেউ কোনও ওয়ার্ড ফাইল পাঠাবে না। খাতায় সুন্দর ভাবে লিখে ছবি তুলে পাঠাতে পারো। প্রবন্ধ ইংরাজিতে লিখলে সরাসরি ওয়ার্ড ফাইল পাঠিয়ে দাও । পিডিএফ ফাইল পাঠানো যেতে পারে।

৩। প্রবন্ধের প্রতিটি পাতায় উল্লেখ থাকতে হবে :

প্রতিযোগীর নাম-

 স্কুলের নাম-

ফোন নম্বর-

শ্রেণী -

বিদ্যালয়ের যে কোনও পরিচয়পত্র- 

প্রবন্ধ পাঠানোর শেষ তারিখ : ২৫ ডিসেম্বর, ২০২০

ফলাফল ঘোষণার তারিখ জানতে চোখ রাখুন ম্যাকাউটের অফিসিয়াল ব্লগ এবং ফেসবুক পেজে 

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,পশ্চিমবঙ্গ (ম্যাকাউট)


শ্রেণি অনুসারে প্রবন্ধ: 


প্রথম বিভাগ - ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি (যে কোনও একটি) Catagory -1

. নারীর ক্ষমতায়ন

. রোবটের দুনিয়া

. প্রকৃতির বিলুপ্ত পাখিরা

প্রবন্ধ পাঠানোর নম্বর  -- ৯৬০৯৪১২২৭৩ অথবা ৮৭৭৭৮৯৫৬০৬

 দ্বিতীয় বিভাগ - নবম   দশম শ্রেণি (যে কোনও একটি) category -2 

. যেখানে যাওয়ার ইচ্ছা আছে, সেখানে যাওয়ার পথও রয়েছে

. জীবন ভাল রাখার প্রধান চাবিকাঠি হল হাসি  

. পৃথিবীর জলসঙ্কট সংরক্ষণের উপায়

প্রবন্ধ পাঠানোর নম্বর - ৯৮৩০৮৮৪০৮১

 তৃতীয় বিভাগ - একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণি (যে কোনও একটি) Category -3

১. শিক্ষায় প্রযুক্তির অবদান

২. শিল্পোদ্যোগের প্রয়োজনীয়তা

৩. ভাল কাজ করতে সময় লাগে

প্রবন্ধ পাঠানোর নম্বর - ৮২৪০০৫৭৫৩৮ অথবা schoolconnectmakaut19@gmail.com

ঘোষণা : প্রবন্ধ নিজে থেকে লিখবে। অন্য কোনও জায়গায় প্রকাশিত প্রবন্ধের সঙ্গে বেশিরভাগ মিল খুঁজে পেলে সেই প্রবন্ধ বাতিল করা হতে পারে।


-----------------------------------------------------------------------------------------------------



 

 


মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০

বিশ্ব-বিজ্ঞানের শ্রেষ্ঠত্বের আসনে ম্যাকাউটের অধ্যাপক

 

বিশ্ব-বিজ্ঞানের শ্রেষ্ঠত্বের আসনে  

 ম্যাকাউটের অধ্যাপক  

 


মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়


আমেরিকার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় সম্প্রতি একটি তালিকা প্রকাশ করেছে, যেখানে বিভিন্ন শাখায় বিশ্বের সর্বাধিক প্রশংসিত বিজ্ঞানীদের সেরা দুই শতাংশের উল্লেখ করা হয়েছে। .জন আইওনিডিসের নেতৃত্বে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের দ্বারা তৈরি হয়েছে এই বৃহৎ ডেটাবেস। বিজ্ঞানের সব ক্ষেত্র মিলিয়ে বিশ্বের সেরা প্রকাশিত স্বীকৃত গবেষণাপত্রের নিরিখে তৈরি হয়েছে স্ট্যানফোর্ডের তালিকা। গবেষণাপত্র যে-জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে, তার মান, গবেষণার মান এবং বার সেই গবেষণাপত্রেরসাইটেশনহয়েছে, তা দেখেই সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীকে স্থান দেওয়া হয়েছে সেরার তালিকায়। সম্পূর্ণ তালিকায় প্রায় ,৫৯,৬৮৩ জন ব্যক্তি রয়েছেন, যার মধ্যে ভারতীয় বিজ্ঞানী রয়েছেন প্রায় দেড় হাজার। আর সব থেকে খুশির খবর সেই তালিকাতেই রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ম্যাকাউট) স্কুল অব কম্পিউটেশনাল সায়েন্সের ডিরেক্টর তথা কম্পিউটার সায়েন্স এবং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক দেবাশিস দে। 

অধ্যাপক দেবাশিস দে

এছাড়াও তিনি অস্ট্রেলিয়ার 'দ্য ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া'- অ্যাডজাঙ্কট রিসার্চ ফেলো।  তিনি আইইইই- সিনিয়র সদস্য। সিএসআইর আজীবন সদস্য হওয়ার পাশাপাশি অধ্যাপক দে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন অফ রেডিও সায়েন্স-এর সদস্য। পাশাপাশি তিনি ম্যাকাউটের সেন্টার অব  মোবাইল ক্লাউড কম্পিউটিংকে উন্নীত করেছেন।  

   

অধ্যাপক দেবাশিস দে ২০০২ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম.টেক অর্জন করেন এবং ২০০৫ সালে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে  পিএইচডি করেন (ইঞ্জিনিয়ারিং) ইউকে- স্কটল্যান্ডে হেরিওট-ওয়াট বিশ্ববিদ্যালয়ে কাজ করার জন্য ভারত সরকারের বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিভাগ তাঁকে ভীষণ মর্যাদাপূর্ণ 'বয়েজ কাস্ট ফেলোশিপ' প্রদান করে।  তিনি 'দ্য ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া'-তে কাজ করার জন্য ২০০৮-২০০৯ সালে ডিইএসটি অস্ট্রেলিয়া দ্বারা 'এন্ডেভর ফেলোশিপ' পুরস্কার পেয়েছিলেন। তিনি ২০০৫ সালে নয়াদিল্লিতে এবং ২০১১ সালে বেলজিয়ামের ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন অফ রেডিও সায়েন্স থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে 'ইয়ং সায়েন্টিস্ট' পুরস্কার পেয়েছিলেন। তার গবেষণামূলক কাজের মধ্যে রয়েছে মোবাইল এজ কম্পিউটিং, ড্রোন টেকনোলজি, ন্যানোসেনসর, এআই ফর ক্লাউড এবং আইওটি। তিনি ৩০০ টিরও বেশি পিয়ার-পর্যালোচিত জার্নাল এবং ১০০ টি কনফারেন্স পেপারস প্রকাশ করেছেন। তিনি সিআরসি, স্প্রিংগার, নোভা, এলসেভিয়ারের ৮টি গবেষণার মনোগ্রাফ, ১২ টি বই, এবং পিয়ারসনে পাঁচটি পাঠ্যপুস্তক প্রকাশ করেছেন। তাঁর এইচ সূচক ২৮ এবং সাইটেশন ৪০০০।  তিনি জার্নাল আইইইই এসিসিইএসএসের একটি সহযোগী সম্পাদক এবং হাইব্রিড কম্পিউটেশনাল ইন্টেলিজেন্সের সম্পাদক।

 

সান ফ্রান্সিসকো বে এলাকায় অবস্থিত, স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়টি আবিষ্কার এবং প্রশিক্ষণের একটি অন্যতম স্থান। ১৮৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত, স্ট্যানফোর্ডের শ্রেষ্ঠত্বের ক্ষেত্রগুলি গবেষণা , কলা এবং ক্রিড়া সহ সাতটি স্কুল। স্ট্যানফোর্ডের অধ্যাপক, কর্মী এবং শিক্ষার্থীরা উদ্ভাবন ও প্রয়োগের মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে  স্বাস্থ্যের উন্নতি লক্ষ্য়ে কাজ করেন।

ধন্যবাদ

গণিতের প্রতি ভয় কাটিয়ে কী ভাবে আগ্রহ বৃদ্ধি করতে হয় তার দিশা পেতে অনলাইনে যোগ দিন ম্যাকাউটের বন্ধন অনুষ্ঠানে..

গণিতের প্রতি ভয় ? সে কারণে আগ্রহ কমছে ? চিন্তা নেই….. গণিতের প্রতি ভয় কাটিয়ে কী ভাবে আগ্রহ বৃদ্ধি করতে হয় তার দিশা ...