রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সেতু বন্ধন


স্কুলের সঙ্গে ‘সেতুবন্ধন’ শুরু করল মাকাউট
 
সেতুবন্ধনে স্কুলের প্রধান ও প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করছেন মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক (ড.) সৈকত মৈত্র মহাশয়  
 একটি চারা গাছই পরবর্তীকালে সুবিশাল মহীরুহে পরিণত হয়। তার জন্য প্রস্তুতি নিতে হয় ছোট্ট থেকেই। একই ভাবে আমাদের সমাজের ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করতে হলে ছাত্রছাত্রীদের ছোট বয়স থেকেই সঠিক ভাবে গড়ে তুলতে হয়। আর এই মহান কাজই  করে থাকেন স্কুলের শিক্ষকেরা। তাই স্কুলের শিক্ষকদের দূরে সরিয়ে রেখে উচ্চ শিক্ষায় ছাত্রছাত্রীদের প্রকৃত উন্নতি সাধন সম্ভব নয়, এমনটাই মনে করেন পশ্চিমবঙ্গের মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (মাকাউট) মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক (.) সৈকত মৈত্র মহাশয়। সে কারণেই স্কুলের সঙ্গে 'সেতুবন্ধন' করতে উদ্যোগী হয়েছে মাকাউট। 

প্রযুক্তির সার্বিক উন্নতিতে মাকাউট কী ভূমিকা গ্রহণ করেছে তার সবিস্তারে বর্ণনা করছেন সহ রেজিস্ট্রার মাননীয় অনুপ মুখোপাধ্যায়  

স্কুলের শিক্ষকদের প্রযুক্তির আগামী ভবিষ্যৎ এবং কী ভাবে এই গোটা প্রক্রিয়ার সঙ্গে  ছাত্রছাত্রীদের যুক্ত করে প্রকৃত উন্নতি সাধন সম্ভব সেটা নিয়ে আলোচনার তাগিদেই গত ১৯ ফেব্রূয়ারি মাকাউটের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসে সেতুবন্ধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল মাকাউট। সেখানে বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষকদের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেন মাননীয় উপাচার্য সৈকত মৈত্র মহাশয়। উত্তর দেন তাঁদের বিভিন্ন প্রশ্নের। সকলের সহযোগিতায় সর্বাঙ্গ সুন্দর হয়ে ওঠে সেতুবন্ধন অনুষ্ঠান।
এক স্কুলের শিক্ষিকার হাতে চারা গাছ তুলে দিচ্ছেন অধ্যাপক শিবময় দাসগুপ্ত 

এ দিনের অনুষ্ঠান এর প্রথমেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রযুক্তিকে আরও কী কী  ভাবে এগিয়ে নিয়ে যেতে চায় তার রূপরেখা তুলে ধরেন মাকাউটের সহ নিবন্ধক অনুপ কুমার মুখোপাধ্যায়। প্রজেক্টারের মাধ্যমে গোটা বিষয়টি তিনি তুলে ধরেন স্কুলের ওই শিক্ষকদের সামনে। এর পরে একে একে বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধানেরা মঞ্চে আসেন। তাঁরা যেভাবে সমাজের চারা গাছকে লালন পালন করছেন সে কথা মাথায় রেখে একই ভাবে প্রতিটি স্কুলের প্রতিনিধিদের গাছের চারা উপহার দেওয়া হয়।      

মাকাউটের কয়েকজন বিশিষ্ট অধ্যাপক মন্ডলী











সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সেতু বন্ধন’




‘সেতু বন্ধন’




স্কুলের গন্ডি পার করে বৃহত্তর ক্ষেত্রে প্রবেশ করেন ছাত্রছাত্রীরা। তাই আগে থেকে সেই বৃহত্তর ক্ষেত্রের সম্বন্ধে জ্ঞান থাকলে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যায়। সে কারণে ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে নিরন্তর যোগাযোগ রাখে মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (মাকাউট), পশ্চিমবঙ্গ। আগামী দিনে প্রযুক্তির উত্তোরণ এর গতির সঙ্গে পাল্লা দিতে নতুন নতুন কোর্সের আবির্ভাব করেছে মাকাউট। তাই পড়ুয়াদের স্বার্থে স্কুলের সঙ্গে সম্পর্ক আরও নিবিড় করার প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। যে কারণে স্কুলের সঙ্গে জ্ঞান, প্রযুক্তি ও তথ্য আদান প্রদানে সেতু নির্মাণ করছে মাকাউট।




তাই, আগামী ১৯ ফেব্রূয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসে আয়োজিত হচ্ছে 'সেতু বন্ধন' অনুষ্ঠান। ইংরেজি ও বাংলা মাধ্যমের স্কুলের এবং হাই মাদ্রসার প্রধান শিক্ষকেরা যোগ দিচ্ছেন এই সেতু বন্ধন অনুষ্ঠানে। যেখানে মাকাউটের সম্মানীয় উপাচার্য মহাশয় অধ্যাপক (ড.) সৈকত মৈত্র সরাসরি কথা বলবেন ওই সমস্ত শিক্ষকের সঙ্গে। উপস্থিত থাকবেন মাকাউটের বিভিন্ন বিভাগের  প্রধানেরা। নয়া ডিজিটাল প্রযুক্তি নিয়ে নিয়ে আলোচনা হবে ওই সেতু বন্ধনের সভায়। সেতু বন্ধন দিয়ে শুরু হচ্ছে স্কুলের সঙ্গে মাকাউটের নিবিড় সম্পর্ক। সারা বছর ধরেই চলতে থাকবে স্কুল কানেক্ট সহ  আরও  নানা অনুষ্ঠান।

শনিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

কলকাতা বইমেলায় মাকাউট, প্রদর্শিত হয় প্রযুক্তির কেরামতি


কলকাতা বইমেলায় মাকাউট




প্রদর্শিত হয় প্রযুক্তির কেরামতি 




বইমেলায় মাকাউটের স্টলের উদ্বোধন করছেন মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক (ড.) সৈকত মৈত্র 







তথ্যকে হাতের কাছে পৌঁছে দিতে, কেরিয়ার গড়তে এবং প্রযুক্তির সঙ্গে সম্পর্ক নিবিড় করে ছাত্রছাত্রীদের আগামী দিনের দিশা দেখতে ৪৪ তম আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলায় হাজির হয়েছিল মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (মাকাউট) .

বিশিষ্টজনদের সঙ্গে আলাপচারিতায় উপাচার্য 






মাকাউটের মাননীয় উপাচার্য 
অধ্যাপক (.) সৈকত মৈত্র মহাশয়-এর পরামর্শ মত ২৯৪ নম্বর স্টলে মাকাউটের বিভিন্ন অধ্যাপক এবং বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত থেকে প্রযুক্তিগত বিভিন্ন কোর্সের ভবিষ্যৎ এবং চাকরির সম্ভাবনা, পাশাপাশি কিভাবে শিল্পোদ্যোগী হওয়া যায় তারও পথ বাতলে দেন তাঁরা। তবে সব থেকে বড় আকর্ষণীয় বিষয় কার্যত মাটিতে পা রেখে কী ভাবে প্রযুক্তির সাহায্যে এক মুহূর্তে হাজার ফুট ওপর থেকে কোনো শহরকে দেখা যায়. অর্থাৎ কলকাতা বইমেলায় দাঁড়িয়েই বোঝা যাবে যেন হাজার ফুট উচ্চতার উঠে গিয়েছে।

রোবোটিক্সের প্রদর্শনী 

ড্রোন টেকনোলজির বিষয়ে বুঝছেন আগ্রহীরা 

এই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির নাম আর / ভি আর।  এই প্রযুক্তির সাহায্যে পুরো ভিস্যুয়ালটাই পরিবর্তন করে দেওয়া যায়। শুধুমাত্র চোখে একটি লেন্স পরলেই মনে হবে কয়েকশো ফুট উচ্চতার মানে প্রায় তিনশো তলা ওপরের কোনো একটি আবাসনে পৌঁছে যাওয়া সম্ভব হয়েছে। সেখান থেকে দেখা যাচ্ছে নিচের গোটা শহরকে।  এর পাশেই ছিল ড্রোন প্রযুক্তির প্রদর্শনী। কী ভাবে ড্রোন তৈরী হয়, ড্রোনকে কী ভাবে চালাতে হয় এবং কী  কাজে লাগে সেগুলি সবই বিস্তারিত বলা হয়েছে ওই স্টল থেকেই। পাশাপাশি ছিল রোবট টেকনোলজি। হাতে কলমে শেখানো হয় সেই সমস্ত প্রযুক্তির কেরামতিও।

মাননীয় উপাচার্য এবং মাননীয় রেজিস্ট্রার  মহাশয় 

মাননীয় উপাচার্যের সঙ্গে বিশিষ্ট চিকিৎসক শঙ্করকুমার নাথ 


মাকাউটের স্টলে উৎসুক জনতার ভিড় 

এমনকি মাকাউটের স্টলে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক (.) সৈকত মৈত্র মহাশয় স্বয়ং। তিনি নিজেও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছেন। পরামর্শ দিয়েছেন কী ভাবে আগামী দিনে প্রযুক্তির আরও উন্নতি করা যায়। ওই পরামর্শ নিতে এবং প্রযুক্তিকে নিজের হাতে পরখ করে নিতে প্রতিদিন ভিড় উপচে পড়েছিল মাকাউটের স্টলে। প্রতিদিন সন্ধ্যায় সকলের জন্য কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল মাকাউট। সকলের সক্রিয় সহযোগিতায় তা দারুণ ভাবে সফল হয়েছে। এক কথায় বলা যায় সার্বিক ভাবে প্রযুক্তির সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক নিবিড় করতে সফল হয়েছে মাকাউট।


এই স্টলে এসেছিলেন বিভিন্ন মিডিয়ার বন্ধুরাও। বর্তমান পত্রিকায় বিস্তারিত ভাবে এই মাকাউটের এই উদ্যোগের সম্পর্কে  খবর প্রকাশিত হয়েছে। মাননীয় উপাচার্য সব সময়ই চেয়েছেন যে ছাত্রছাত্রীদের এবং তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে মাকাউটের সম্পর্ক যেন মধুর কাছের হয়।  কলকাতা বইমেলায় সেই উদেশ্য ভীষণভাবে সফল হয়েছে। 



সকলে। ...................................

মাধ্যমিক - উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের সাহায্যে ম্যাকাউট

  ম্যাকাউটের বন্ধন মাধ্যমিক - উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের সাহায্যে ম্যাকাউট     আর মাস খানেক পরেই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমি...